বৃহস্পতিবার২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ১৯শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিচারপতি খায়রুল হকের বিচার করা উচিত: ফখরুল

রাজধানীর নয়াপল্টনে আয়োজিত সমাবেশে

 বক্তব্য দিচ্ছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: সমাবেশেভিডিও থেকে নেওয়া

সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হককে সবার আগে বিচার করা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ (বুধবার) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন।”

;মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বিচারপতি খায়রুল হককে এনে সবার আগে বিচার করা উচিত। তিনি যে রায় দিয়েছেন তার জন্য রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা তৈরি হয়েছে, রাজনৈতিক সংকট তৈরি হয়েছে। এর জন্য দায়ী একমাত্র তিনিই।”

;বিএনপি মহাসচিব বলেন-যখন তিনি দায়িত্বে ছিলেন না, তখন তিনি রায় লিখে বিচার বিভাগকে ধ্বংস করেছেন। সংবিধান লঙ্ঘন করেছেন। খায়রুল হকের ষড়যন্ত্রের কারণে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল হয়েছে। এই সরকারের অধীনে নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন-এই সরকার বাংলাদেশবিরোধী সরকার, গণতন্ত্রবিরোধী সরকার, স্বাধীনতাবিরোধী সরকার। আমরা নির্বাচন চাই।নির্বাচনের মধ্য দিয়ে ক্ষমতা হস্তান্তর চাই। আপনার মতো শেয়ালের অধীনে নির্বাচন চাই না।”

;বিএনপি মহাসচিব বলেন-আজ ভয়াবহ লুটেরা, একটি ফ্যাসিস্ট… তাদেরকে সরিয়ে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ একটি নির্বাচন আমরা চাই। সেই লক্ষ্যে বন্ধুগণ, আমরা সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলো, যারা এতদিন ধরে যৌথভাবে কর্মসূচি করে আসছি, এই সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করছি, তারা সর্বসম্মতভাবে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে আজকে আমরা একটা যৌথ ঘোষণা দেব, যার যার জায়গা থেকে।”

;আমাদের প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল, প্রায় ৩৬টি দল, জোট আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি সর্বসম্মতভাবে। সেই সিদ্ধান্তটি কি, আমি আপনাদের পড়ে শোনাই। যুগপৎ ধারায় বৃহত্তর গণআন্দোলনের একদফার যৌথ ঘোষণা। একদফা, আর কোনো দফা নাই।”

;এক দফার ব্যাপারে ফখরুল বলেন-বাংলাদেশের জনগণের ভোটাধিকার হরণকারী বর্তমান ফ্যাসিবাদী, কর্তৃত্ববাদী অবৈধ সরকারের পদত্যাগ ও বিদ্যমান অবৈধ সংসদের বিলুপ্তি; নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠন ও নির্বাচন কমিশন পুনঃগঠন করে তার অধীনে অবাধ, নিরপেক্ষ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের ব্যবস্থা; বিএনপি চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দীর মুক্তি, মিথ্যা-গায়েবি মামলা প্রত্যাহার, ফরমায়েশি সাজা বাতিল এবং সংবিধান ও রাষ্ট্রব্যবস্থার গণতান্ত্রিক সংস্কারের মাধ্যমে জনগণের অর্থনৈতিক মুক্তি, ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার এক দফা দাবিতে রাজপথে সক্রিয় বিরোধী রাজনৈতিক জোট ও দলসমূহ যুগপৎ ধারায় ঐক্যবদ্ধ বৃহত্তর গণআন্দোলন গড় তোলা ও সফল করার ঘোষণা প্রদান করছে।”

;আজ দুপুর ২টায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে এ সমাবেশ শুরু হয়।সমাবেশের জন্য কার্যালয়ের সামনের রাস্তায় ছয়টি ট্রাক দিয়ে অস্থায়ী মঞ্চ তৈরি করা হয়। চলমান সমাবেশ থেকে সরকার পতনের এক দফার চূড়ান্ত আন্দোলনের ঘোষণা দিতে যাচ্ছে বিএনপি।”

;ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে এবং উত্তরের সদস্য সচিব আমিনুল হক ও দক্ষিণের ভারপ্রাপ্ত সদস্য সচিব তানভীর আহমেদ রবিনের সঞ্চালনায় এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।,