শনিবার২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ১৬ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শরীয়তপুরে হাত ভেঙে দিয়ে মাথায় কোপ, মুখে দেওয়া হলো মল!

জেলা প্রতিনিধি–

শরীয়তপুর সদর উপজেলার ৫৪ নম্বর ভর্তাইসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী ও দপ্তরি ইমরান হোসেন বেপারীকে (২৭) কুপিয়ে আহত করা হয়েছে। একই সঙ্গে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে তার হাত ভেঙে দেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, তার মুখে মানুষের মল মেখে দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে।ওই ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত খলিল মাদবরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।”

;আজ সোমবার রাতে পালং মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ আক্তার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।পালং মডেল থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শরীয়তপুর সদর উপজেলার ডোমসার ইউনিয়নের ভর্তাইসার গ্রামের ইমরান হোসেন বেপারী স্থানীয় ৫৪ নম্বর ভর্তাইসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী ও দপ্তরি। ইমরানের পরিবারের সঙ্গে প্রতিবেশী খলিল মাদবরের পরিবারের জমিজমা নিয়ে বিরোধ রয়েছে।”

;ওই বিরোধের জেরে শুক্রবার রাতে খলিল মাদবর ৭-৮ জন লোক নিয়ে ইমরানের ওপর হামলা করে। একই সঙ্গে তাকে কুপিয়ে আহত করা হয়। লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে তার ডান হাত ভেঙে দেওয়া হয়েছে। এরপর হামলাকারীরা তার মুখে মানুষের মল মেখে দেয়।চিৎকার শুনে স্থানীয়রা ইমরানকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি কর”

;এ ঘটনায় গত শনিবার ইমরানের বাবা মোতালেব বেপারী বাদী হয়ে পালং মডেল থানায় মামলা করেন। এতে খলিল মাদবরসহ ৮ ব্যক্তিকে আসামি করা হয়। ওই রাতেই প্রধান অভিযুক্ত খলিল মাদবরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অন্য আসামিরা পলাতক রয়েছে।চিৎকার শুনে স্থানীয়রা ইমরানকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।”

;এ ঘটনায় গত শনিবার ইমরানের বাবা মোতালেব বেপারী বাদী হয়ে পালং মডেল থানায় মামলা করেন। এতে খলিল মাদবরসহ ৮ ব্যক্তিকে আসামি করা হয়। ওই রাতেই প্রধান অভিযুক্ত খলিল মাদবরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অন্য আসামিরা পলাতক রয়েছে।”

;পালং মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ আক্তার হোসেন বলেন-একটি বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরীকে কুপিয়ে আহত করা হয়েছে। জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। অভিযুক্ত একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।.