বৃহস্পতিবার২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ১৯শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কুষ্টিয়ায় ইউএনও’র গাড়ি ভাঙচুর

খোকসা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিপন বিশ্বাসের ভাঙচুর করা গাড়ি।ছবি সংগৃহীত।

ইবি প্রতিনিধি-

কুষ্টিয়ায় উপনির্বাচনে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বাবুল আকতার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোতাহার হোসেন খোকনের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও ইট নিক্ষেপ হয়েছে। এ সময় খোকসা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিপন বিশ্বাসের গাড়ি ভাঙচুর করে তারা “

;গতকাল (শনিবার) রাত সাড়ে ৮টার দিকে খোকসা পৌরবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সৈয়দ আশিকুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান- সরকারি গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে মামলার প্রস্তুতি চলছে।”

;পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে- আগামী ২ নভেম্বর খোকসা উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচন। এই নির্বাচনকে ঘিরে বেশ কয়েক দিন ধরেই চরম উত্তেজনা বিরাজ করছিল স্বতন্ত্র প্রার্থী মোতাহার হোসেন ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বাবুল আক্তারের সমর্থকদের মধ্যে। এরই জেরে শনিবার সন্ধ্যায় খোকসা বাজারে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বাবুল আক্তারের লোকজন স্বতন্ত্র প্রার্থী মোতাহার হোসেনের এক সমর্থককে মারধরের অভিযোগ তোলেন। এ নিয়ে চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হলে উভয় পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নেয় এবং পাল্টাপাল্টি ধাওয়া শুরু হয়”

;।পরে খোকসা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিপন বিশ্বাস ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করেন। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে আবারও শুরু হয় পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ। পরে পেছন থেকে হামলাকারীরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সরকারি গাড়ি ভাঙচুর করে।”

;জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ফজলুল করিম বলেন, খোকসায় বেশ কয়েক দিন ধরেই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা চলছিল। শনিবার দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় ইউএনওর গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে।”

;খোকসা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রিপন বিশ্বাস বলেন, ‘নৌকার প্রার্থী বাবুল আকতার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মোতাহার হোসেনের সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনার খবর পেয়ে আমি ও ওসি ঘটনাস্থলে যাই। পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে ফেরার সময় আমার সরকারি গাড়ির পেছনে ইট লাগে। এতে পেছনের গ্লাস ভেঙে যায়। এ সংক্রান্ত মামলা চলমান রয়েছে। ভাঙা গাড়িটি বর্তমানে থানায় রয়েছে।/