শুক্রবার১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ১০ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

 সরকারের ঈদুল আজহা উদ্‌যাপনে ৮ নির্দেশনা জারি

ঈদ জামায়াতের সংগৃহীত পুরনো ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদক-

পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন উপলক্ষে কোনো ধরনের আলোকসজ্জা করা যাবে না নির্দেশনা জারি করেছে সরকার। এ ছাড়া ঈদের জামাতে অংশ নিতে হলে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে।”

;এসব বিষয়সহ ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন উপলক্ষে আট দফা নির্দেশনা জারি করেছে সরকার।আজ বৃহস্পতিবার এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে এসব নির্দেশনা জারি করে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়।”

;এতে বর্তমানে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপনে আটটি নির্দেশনা অনুসরণের জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।”

;নির্দেশনা গুলো হলো-

১. আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপন উপলক্ষে কোনো ধরনের আলোকসজ্জা করা যাবে না।২. সবাইকে নিজ নিজ বাসা থেকে অজু করে ঈদগাহে বা মসজিদে যেতে হবে।;

৩. করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে মসজিদ বা ঈদগাহের ওজুখানায় সাবান বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে।;

৪. ঈদের নামাজের জামাতে যাওয়া মুসল্লিকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে যেতে হবে। মসজিদ বা ঈদগাহে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না।;

৫. ঈদের নামাজ আদায়ের সময় কাতারে নামাজে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে। এক কাতার ফাঁকা রেখে নামাজে দাঁড়াতে হবে।;

৬. করোনাভাইরাস মহামারি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজ শেষে মহান আল্লাহর দরবারে খতিব ও ইমামদের দোয়া করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।;

৭. খতিব, ইমাম এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটি ও স্থানীয় প্রশাসনকে বিষয়গুলো বাস্তবায়ন নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।;

৮. পশু কোরবানির ক্ষেত্রে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা যথাযথভাবে পালন করতে বলা হয়েছে।;

ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে স্থানীয় প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনী, জনপ্রতিনিধি, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সংশ্লিষ্ট মসজিদের পরিচালনা কমিটিকে এসব নির্দেশনা বাস্তবায়নের অনুরোধ জানিয়েছে ।

উল্লেখ্য, আগামী ১০ জুলাই মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা উদ্‌যাপিত হবে।;