বুধবার২৪শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি৯ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

একই দিনে বিয়ে একই সঙ্গে জন্ম নেয়া চার বোনের

বাংলা সংবাদ২৪ ডেস্ক– দক্ষিণ ভারতের কেরালা রাজ্যের চার বোন একই দিনে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, একই ছাদের নীচে জীবন কাটিয়েছেন। একই রকম পোশাক পরা ছাড়াও ১৫ বছর বয়স পর্যন্ত এক স্কুলে একই সারিতে বসতেন তারা। অবশেষে এই চার বোন একই দিনে বিয়ে করতে যাচ্ছেন।

তবে এই চার বোনের একটি ভাইও রয়েছে। তারা এই পাঁচ ভাইবোন একই সঙ্গে পৃথিবীর মুখ দেখেন। একসঙ্গে জন্ম নেয়া পাঁচ শিশুকে চিকিৎসা শাস্ত্রের ভাষায় বলা হয় কুইন্টুপ্লেটস। জন্মের দিন থেকেই সবার আলাদা নজরে থেকে অভ্যস্ত তারা। স্থানীয় গণমাধ্যমগুলোও তাদের কষ্ট ও দুর্দশাগ্রস্ত জীবনের গল্প নিয়ে নিয়মিত লেখালেখি করতো।

তারা বিবিসিকে নিজেদের জীবনের গল্প শুনিয়েছেন উথ্রাজা, উথারা, উথামা, উথ্রা এবং তাদের ভাই উথ্রাজন। তারা পাঁচ ভাইবোন জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৯৯৫ সালের ১৮ই নভেম্বর। আগামী বছরের ২রা এপ্রিল চার বোনের একসঙ্গে একইদিনে বিয়ের পরিকল্পনা করছেন। উথারা বলেন, আমাদের বাড়িতে বেশিরভাগ কথাবার্তাই এখন বিয়ের বিষয় নিয়ে হয়। আমরা এখনও আমাদের সেই বিশেষ দিনটির জন্য সিল্কের শাড়ি কিনতে পারিনি।

তবে আমরা একই নকশা এবং একই রঙের শাড়ি কিনবো। তিনি নিজে একজন সাংবাদিক এবং তার হবুও স্বামীও তাই। বিয়ের পুরো অনুষ্ঠান হবে স্থানীয় রীতি ও ঐতিহ্য অনুসারে। সে হিসেবে এখানে বর-কনে নিজেরা নিজেদের বেছে নেয়ার পরিবর্তে পরিবারের প্রবীণ সদস্যরা এখানে ঘটকের ভূমিকা পালন করেন। এক্ষেত্রে তাদের মা রেমা দেবী বিবাহ ‘ম্যাচমেকিং’ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে মেয়েদেরকে নিজেদের স্বামী বাঁছাইয়ে সাহায্য করেন।

এই ধরনের বিয়ে সাধারণত একই বর্ণ এবং একই অর্থনৈতিক ও শিক্ষাগত যোগ্যতাসম্পন্ন সদস্যদের মেলবন্ধন করে। জ্যোতিষীরা নববধূ এবং কনের রাশিফলগুলো পরীক্ষা করে এবং তাদের পরিবারকে জানায় যে সত্যিই তাদেরকে একে অপরের জন্য তৈরি করা হয়েছে কি-না। তবে এসব কোনো জোরপূর্বক বিয়ে নয়। বর ও কনেদের নিজেদের মতামত দেয়ার সুযোগ রয়েছে। গত সেপ্টেম্বরে তাদের বাগদান সম্পন্ন হয়, তবে মধ্যপ্রাচ্যে কাজ করার কারণে চারজন বরের মধ্যে তিনজন বাগদানে উপস্থিত থাকতে পারেননি।

দেখতে আলাদা এই চার বোন এখন চেষ্টা করছেন যে তাদের বিয়ের সমস্ত আয়োজন যেন দেখতে একরকম হয়। তারা জন্ম থেকেই সবকিছু একসঙ্গে করে আসছেন, যদিও তারা একে অপরের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতেন এবং এ কারণেই তাদের প্রত্যেকের ব্যক্তিত্ব একজনের থেকে আরেকজনেরটা আলাদা।

তবে চার বোন জানিয়েছেন, তারা নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়ে মায়ের পাশে থাকবেন। তারা আরও জানায় যে তারা কখনও একে অপরকে ছেড়ে যাবে না। সুত্র- বিবিসি