মঙ্গলবার১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নরসিংদীতে সম্পত্তির লোভে বোনকে পাগল বানাল ভাই!

ছবি -সংগৃহীত।

বাংলা সংবাদ২৪ ডেক্স–নরসিংদি জেলার পলাশ উপজেলার ঘোড়াশাল পৌর এলাকার চামড়াব গ্রামে সম্পত্তির লোভে বোনকে পাগল বানাতে শিকলে বেঁধে নির্যাতনের খবর পাওয়া গেছে।

শনিবার সকালে পলাশ থানার পুলিশ ঘরের তালা ভেঙ্গে শিকলে বাঁধা অবস্থায় কিশোরী স্মৃতি রাণী পালকে (১৮) উদ্ধার করে। পরে তাকে পলাশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

ভুক্তবোগি স্মৃতি রানী পাল পৌর এলাকার চামড়াব গ্রামের মৃত দেবেশ চন্দ্র পালের মেয়ে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে স্মৃতির ভাই রনি পাল (২৫) পালিয়ে গেছে। এ সময় স্মৃতির কাকা রিপন পালকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ আটক করেছে।

জানা গেছে, দেবেশ চন্দ্র পাল প্রায় আট বছর আগে ও তার স্ত্রী বিনা রানী পাল প্রায় প্রায় বছর আগে মারা যান। তাদের রেখে যাওয়া প্রায় ১২০ শতক জমি ছেলে রনি পাল ও মেয়ে স্মৃতি পাল ভোগ করে আসছিলেন।

স্মৃতি গত ২০১৮ সালে পলাশের রাবণ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করে।রনি বোন স্মৃতিকে আর কলেজে ভর্তি করেনি। সে এলাকায় বিনা বেতনে ছোট ছেলেমেয়েদের পড়াত। সকল সম্পত্তি একা ভোগ করতে তাকে পাগল বানানোর চেষ্টা চালায় রনি।

গত এক মাস তাকে একটি ঘরের খাটের সঙ্গে পায়ে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখে। বন্ধ রাখা হয় ওই ঘরের দরজা-জানালা, ফ্যান ও বাতি। মানসিক নির্যাতনের পাশাপাশি তাকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ফেলে রাখা হতো। এক মাস তাকে তিন বেলা ঠিক মত খেতেও দেওয়া হয়নি।

এই সুযোগে রনি তার কাকা রিপন পালের শ্যালক পৌর এলাকার ভাগদী গ্রামের বাসিন্দা অপু পালের কাছে সমস্ত সম্পত্তি বিক্রি করতে ৪০ লাখ টাকা বায়না করে।জিজ্ঞাসাবাদে রিপন পাল জানান, বাকি টাকা নিয়ে এক সপ্তাহের মধ্যে বাড়িসহ জমি রেজিস্ট্রি করে দেওয়ার কথা ছিল।

পলাশ থানার অফিসার ইনচার্জ মকবুল হোসেন মোল্লা জানান, খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করি। সে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছিল। সুস্থ হলে বিকেলে থানায় নিয়ে আসি। স্মৃতি পুরোপুরি সুস্থ হলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহেদ আহম্মেদ, পলাশ উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ জাবেদ হোসেন ও পৌর মেয়র শরিফুল হক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।